জীবনধারা

বেকিং সোডা ও বেকিং পাউডার কি একই জিনিস? বেকিং সোডার স্থলে কী বেকিং পাউডার ব্যবহার করা যাবে?

বেকিং সোডা ও বেকিং পাউডার এই দুইটা জিনিস আমারা সবাই চিনি। কিন্তু আমাদের অনেক কেই এই প্রশ্ন করতে দেখা যায় যে এই দুইটা একই কাজ করে নাকি আলাদা?? দুইটা জিনিসের নাম ও কাজ প্রায় একই, দুটোই কার্বন-ডাই-অস্কাইড উৎপন্ন করে। এর ফলেই বেকিং করা খাবার ফুলে ওঠে। তাহলে বেকিং পাউডার ও বেকিং সোডার মধ্যে পার্থক্য কি? চলুন দখে নিই বিস্তারিত! বেকিং সোডা ও বেকিং পাউডারের মূল পার্থক্য বেকিং সোডাঃ বেকিং সোডা হল মুলত একটি উপকরন আর সেটা হল সোডিয়াম-বাই- কার্বনেট। এটা যেকোন এসিড জাতীয় বা ভেজা জিনিসের সংস্পর্শে আসলে একটিভ হয়ে ওঠে। যেমনঃ ভিনেগার, দুধ, মধু, বাটারমিল্ক ইত্যাদি। এই মিস্রনের ফলে ও নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় খাবারকে ফোলাতে সাহায্য করে। বেকিং পাউডারঃ বেকিং পাউডারে সোডিয়াম-বাই- কার্বনেটের সাথে আরও আছে স্টার্চ ও ক্রিম অফ টারটার। বেকিং পাউডার দুইভাবে কাজ করে। একটাকে বলে “সিঙ্গেল এক্টিং” আর অন্যটা “ডাবল এক্টিং”। প্রথমটা কাজ করে ভেজা বা তরল অবস্থায়। আর দ্বিতীয়টা কিছু গ্যাস ভেজা অবস্থায় আর কিছু গ্যাস অভেনে বেক করতে দেয়ার পরে। বেকিং সোডা ও বেকিং পাউডার কোনটা কখন ব্যাবহার করব? আমরা অনেক বেকিং রেসিপিতে দেখি কখনও বেকিং পাউডার আবার কখনও বেকিং সোডা ব্যাবহার করতে বলছে। আবার কোনটায় দুইটাই লাগে। এখন প্রশ্ন হল, কোনটা কখন ব্যাবহার করব?? রেসিপি অনুযায়ী যদি আপনার কাছে দুইটা না থাকে তাহলে কি করবেন? সহজে মনে রাখবেন- আপনি বেকিং সোডার পরিবর্তে বেকিং পাউডার ব্যাবহার করতে পারবেন কারন এতে একটা উপাদান কমন থাকে, সোডিয়াম-বাই-কার্বনেট। কিন্তু যেখানে বেকিং পাউডার দরকার সেখানে বেকিং সোডা ব্যাবহার করা যাবে না। বেকিং সোডা ও বেকিং পাউডার কি সমান পরিমানে লাগে? না, বেকিং সোডার তুলনায় বেকিং পাউডার প্রায় ৩ গুন বেশি ব্যাবহার করতে হয়। আর বেকিং খুব সেনসিটিভ, তাই যে রেসিপি ফলো করবেন তার মাপটা ঠিক সেভাবেই দিবেন।এতে প্রতিবার একই ফলাফল পাবেন।

বেকিং সোডা ও বেকিং পাউডার এই দুইটা জিনিস আমারা সবাই চিনি। কিন্তু আমাদের অনেক কেই এই প্রশ্ন করতে দেখা যায় যে এই দুইটা একই কাজ করে নাকি আলাদা?? দুইটা জিনিসের নাম ও কাজ প্রায় একই, দুটোই কার্বন-ডাই-অস্কাইড উৎপন্ন করে। এর ফলেই বেকিং করা খাবার ফুলে ওঠে। তাহলে বেকিং পাউডার ও বেকিং সোডার মধ্যে পার্থক্য কি?

চলুন দখে নিই বিস্তারিত!

বেকিং সোডা ও বেকিং পাউডারের মূল পার্থক্য

বেকিং সোডাঃ বেকিং সোডা হল মুলত একটি উপকরন আর সেটা হল সোডিয়াম-বাই- কার্বনেট। এটা যেকোন এসিড জাতীয় বা ভেজা জিনিসের সংস্পর্শে আসলে একটিভ হয়ে ওঠে। যেমনঃ ভিনেগার, দুধ, মধু, বাটারমিল্ক  ইত্যাদি। এই মিস্রনের ফলে ও নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় খাবারকে ফোলাতে সাহায্য করে।

বেকিং পাউডারঃ বেকিং পাউডারে সোডিয়াম-বাই- কার্বনেটের সাথে আরও আছে স্টার্চ ও ক্রিম অফ টারটার। বেকিং পাউডার দুইভাবে কাজ করে। একটাকে বলে “সিঙ্গেল এক্টিং” আর অন্যটা “ডাবল এক্টিং”। প্রথমটা কাজ করে ভেজা বা তরল অবস্থায়। আর দ্বিতীয়টা কিছু গ্যাস ভেজা অবস্থায় আর কিছু গ্যাস অভেনে বেক করতে দেয়ার পরে।

বেকিং সোডা ও বেকিং পাউডার কোনটা কখন ব্যাবহার করব?

আমরা অনেক বেকিং রেসিপিতে দেখি কখনও বেকিং পাউডার আবার কখনও বেকিং সোডা ব্যাবহার করতে বলছে। আবার কোনটায় দুইটাই লাগে। এখন প্রশ্ন হল, কোনটা কখন ব্যাবহার করব?? রেসিপি অনুযায়ী যদি আপনার কাছে দুইটা না থাকে তাহলে কি করবেন? সহজে মনে রাখবেন- আপনি বেকিং সোডার পরিবর্তে বেকিং পাউডার ব্যাবহার করতে পারবেন কারন এতে একটা উপাদান কমন থাকে, সোডিয়াম-বাই-কার্বনেট। কিন্তু যেখানে  বেকিং পাউডার দরকার সেখানে বেকিং সোডা ব্যাবহার করা যাবে না।

বেকিং সোডা ও বেকিং পাউডার কি সমান পরিমানে লাগে?

না, বেকিং সোডার তুলনায় বেকিং পাউডার প্রায় ৩ গুন বেশি ব্যাবহার করতে হয়। আর বেকিং খুব সেনসিটিভ, তাই যে রেসিপি ফলো করবেন তার মাপটা ঠিক সেভাবেই দিবেন।এতে প্রতিবার একই ফলাফল পাবেন।

সূত্রঃ বিডি রমণী

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বাধিক পঠিত

To Top